মাখানা খেলে এই উপকার পাবেন, জেনে নিন কিছু অসুবিধাও

মাখানা একটি সুস্বাদু ও পুষ্টিকর খাদ্য উপাদান। মাখানা শিয়াল বাদাম নামেও পরিচিত। মানুষ নাস্তা হিসেবে মাখানা খেতে পছন্দ করে, মাখানা খাওয়া চিনি থেকে কোলেস্টেরল সব কিছু নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এর পাশাপাশি মাখানা খাওয়া অন্যান্য স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। কারণ ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং প্রোটিনের পাশাপাশি অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণও পাওয়া যায় মাখনে, যা শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। কিন্তু মাখান খাওয়ার যেমন অনেক উপকারিতা আছে, তেমনি কিছু অপকারিতাও আছে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক মাখান খাওয়ার কী কী উপকারিতা ও অপকারিতা রয়েছে।

মাখানা খাওয়ার এই 8টি উপকার পাবেন, জেনে নিন কিছু অসুবিধেও-মাখানা খাওয়ার উপকারিতা ও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

মাখন খাওয়ার উপকারিতা

1- মাখনে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে, যা উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের জন্য উপকারী। মাখানা খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। যার কারণে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে।

2- মাখনে ক্যালরির পরিমাণ কম এবং ফাইবার বেশি পাওয়া যায়, তাই খাবারে মাখানা অন্তর্ভুক্ত করলে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

3- ডায়াবেটিস রোগীদের খাদ্যতালিকায় মাখানা অন্তর্ভুক্ত করলে উপকার পাওয়া যায়। কারণ এতে উপস্থিত হাইপোগ্লাইসেমিক প্রভাব রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

৪- মাখানা সেবন হাড় ও দাঁতের জন্যও উপকারী। কারণ এতে উপস্থিত ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম হাড় ও দাঁত মজবুত করতে সাহায্য করে।

৫- মাখান সেবন হার্টের জন্য উপকারী। কারণ এটি কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করে, যা হার্টকে সুস্থ রাখে এবং হার্ট সংক্রান্ত রোগের ঝুঁকি কমায়।

৬- মাখানা প্রোটিন, আয়রন, ক্যালসিয়ামের ভালো উৎস, তাই প্রতিদিন সকালে মাখনা খেলে তা সারাদিন শরীরকে সতেজ রাখে।

7- মাখানা সেবন হজম স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। কারণ এতে উপস্থিত ফাইবার হজমশক্তির উন্নতি ঘটায় এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে।

8- মাখনে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্য পাওয়া যায়। এমতাবস্থায় মাখানা সেবন করলে তা ত্বককে রাখে তরুণ এবং ত্বকে উজ্জ্বলতা।

মাখানা খাওয়ার অসুবিধা

1- আপনার যদি কিডনিতে পাথরের সমস্যা থাকে, তাহলে মাখানা খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত।

2- অতিরিক্ত পরিমাণে মাখান খেলে ফোলা সমস্যা হতে পারে।

3- আপনি যদি কোনো অ্যালার্জির সমস্যায় অস্থির থাকেন, তাহলে মাখানা খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

দাবিত্যাগ: এই বিষয়বস্তু, পরামর্শ সহ, শুধুমাত্র সাধারণ তথ্য প্রদান করে। এটা কোনোভাবেই যোগ্য চিকিৎসা মতামতের বিকল্প নয়। আরও বিস্তারিত জানার জন্য সর্বদা একজন বিশেষজ্ঞ বা আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। স্পোর্টসকিদা হিন্দি এই তথ্যের দায় স্বীকার করে না।

সম্পাদনা করেছেন রক্ষিতা শ্রীবাস্তব


Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top